মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

গ্রাম পুলিশ

ক্রমিকনং

নাম

ওর্য়াড

পদবী

ঠিকানা

১.

বাবুধনঞ্জয়ত্ঞ্চঙ্গ্যা

দফাদার

রাজস্থলীরাজার

২.

বাবুসাথিরামত্রিপুরা

মহল্লাদার

কৃষ্টপাড়া

৩.

বাবুকৃষ্টচন্দ্র‍ত্রিপুরা

মহল্লাদার

বলিপাড়া

৪.

বাবুসুপন্ততঞ্চঙ্গ্যা

মহল্লাদার

নাড়াইছড়িপাড়া

৫.

বাবুপুষ্পঅংতঞ্চঙ্গ্যা

মহল্লাদার

আমতলীপাড়া

৬.

বাবুকামিনিতঞ্চঙ্গ্যা

মহল্লাদার

মাগাইনপূর্ণবাসনপাড়া

৭.

মোঃনুরনবী

মহল্লাদার

খাগড়াছড়িপাড়া

৮.

মোঃজাহিদুলআলস

মহল্লাদার

তালুকদারপাড়া

৯.

বাবুচিংথয়খিয়াং

মহল্লাদার

বড়কুক্ক্যাছড়িপাড়া

১০.

বাবুচাম্পাধনতঞ্চঙ্গ্যা

মহল্লাদার

মনিঅংকারবারীপাড়া

 

একজন রাখাল যখন কোন গিরস্থ্যর বাড়িতে কাজ নেয়, তখন কি সে ভাবে আমি আজীবন এই বাড়িতে রাখালি করব? হয়তো না, কারণ ঐ রাখাল ও মনে মনে স্বপ্ন বুনে এই বাড়ি ৫/৬ বছর কাজ করবো, তার পর কিছু টাকা জমা করবে, কিছু জমি লীজ নিবে, একজোড়া গরু কিনবে। এভাবে পরিশ্রম করে একদিন সে নিজেই গিরস্থ্য গিরি করবে। অনুরুপ প্রত্যেক মানুষেরই স্বপ্ন থাকে তার অবস্থা থেকে আর একটু ভাল অবস্থায় উঠে আসবে।
আমি ও আমার মত যারা পুলিশ কনস্টবল পদে ভতি হয়ে এতদিন ধরে চাকুরী করছি। তাদের প্রত্যেকের আপন মনে স্বপ্ন আছে। হয়তো বা একদিন অফিসার হবো। আর এই স্বপ্ন পূরণের জন্য একটু সময় দেওয়ার প্রযোজন। তবে সময়টুকো কোন ভাল জায়গায়। আমরা এই আধুনিক বা 3G যুগে অনেক সময় ইন্টারনেটে কাটায়। এই ধরণের পেইজে সময় কাটালে আমাদের সময় ও যেমন কাটবে, তেমনি আপনার কাজের ক্ষেত্রের অনেক সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি। ধন্যবাদ সবাইকে…

 

শান্তি শপথে বলীয়ান বাংলাদেশ পুলিশ আইন শৃঙ্খলা রক্ষা, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা, নির্যাতিত মানুষের পাশে বন্ধুর মতো দাড়ানো এবং অপরাধীকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে থাকে। বাংলাদেশ পুলিশের হেড কোয়ার্টার গুলিস্তানের নগর ভবনের পশ্চিম পাশে অবস্থিত। ঢাকা মহানগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। পুলিশকে সহায়তা এবং বাংলাদেশের মানুষকে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলয় আবদ্ধ করতে আরও রয়েছে – র‍্যাব, ডিবি, এসবি, সিআইডি, বিট পুলিশ এবং রেলওয়ে পুলিশ। বর্তমানে অনলাইনে জিডি করা যায়। এছাড়া নিপীড়িত জনগণকে তাৎক্ষণিক পুলিশি সেবা প্রদান করার জন্য চালু হয়েছে ওয়ান স্টপ সার্ভিস। পুলিশ বাহিনী আইন শৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি পাসপোর্ট ভেরিফিকেশন, ইমিগ্রেশন এবং অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে।
পুলিশী সেবা পেতে
ঔপনিবেশিক আমলে পুলিশ বাহিনী গঠনের উদ্দেশ্য যাই হোক না কেন, একটি স্বাধীন দেশে পুলিশ বাহিনী জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করার কথা। একারণে এখন পুলিশ ফোর্স না বলে পুলিশ সার্ভিস বলা হয়ে থাকে।
কিন্তু বিভিন্ন প্রয়োজনে কিভাবে পুলিশের সেবা নিতে হয়, কোথায় কি প্রক্রিয়ায় যোগাযোগ করতে হয়, ইত্যাদি তথ্য ঠিকমত না জানার কারণে অনেকেই বিভিন্ন প্রয়োজনে বা বিপদে সহজে পুলিশের দারস্থ হন না। অথচ অনেক ক্ষেত্রেই পুলিশের সাহায্য নেয়ার প্রক্রিয়াটি খুব বেশি জটিল নয়। আবার পুলিশ ক্লিয়ারেন্স নেয়া, পাসপোর্ট করা প্রভৃতি ক্ষেত্রে পুলিশের ভূমিকা অগ্রাহ্য করার সুযোগ নেই। এসব বিষয় চিন্তা করে পুলিশের সেবা আর সেবা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া সম্পর্কে তথ্য থাকছে এখানে।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter